সৈয়দপুর ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধায় আওয়ামী লীগ-মনোনীত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক নির্বাচিত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:২১:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ অক্টোবর ২০২২ ১৭ বার পড়া হয়েছে
চোখ২৪.নেট অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ-মনোনীত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৮৩ ভোট ও তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পাটি প্রার্থী আতাউর রহমান আতা পেয়েছেন ৫২৩ ভোট। ফলে বেসরকারিভাবে আবু বকর সিদ্দিককে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।

জেলার ৭টি উপজেলার নির্বাচন অফিস থেকে এ ফলাফল নিশ্চিত করা হয়েছে। এর আগে সোমবার সকাল ৯টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে চলে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

গাইবান্ধা ৭ টি উপজেলার মধ্যে গাইবান্ধা সদরে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৯৬ ভোট আর জাতীয় পার্টি-সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৮৬ ভোট।

ফুলছড়িতে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৫৪ ভোট আর জাতীয় পাটি-সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৩৮ ভোট।

সাঘাটায় আওয়ামী লীগ সমর্থিক প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৫৬ ভোট আর জাতীয় পাটি সমর্থিক আতাউর রহমান আতা ৭৪ ভোট।

সাদুল্যাপুরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৮৮ ভোট আর জাতীয় পার্টি সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৫৫ ভোট।

পলাশবাড়ী উপজেলায় আওয়ামী লীগ- সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৬৫ ভোট আর জাতীয় পাটি- সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৫২ ভোট।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামীলীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৮৩ ভোট আর জাতীয় পাটি সমর্থিক আতাউর রহমান আতা ১২৬ ভোট।

গোবিন্দগঞ্জে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ১৪১ ভোট আর জাতীয় পাটি সমর্থিক আতাউর রহমান আতা ৯২ ভোট পেয়েছেন।

গাইবান্ধা জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৭টি উপজেলার ৮০ টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌর সভার মোট এক হাজার ১৩৪ জন ভোটার। প্রাপ্ত ভোটের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ১ জন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ৭ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত নারী সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

এদিকে নির্বাচন চলাকালে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য


গাইবান্ধায় আওয়ামী লীগ-মনোনীত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক নির্বাচিত

আপডেট সময় : ০৪:২১:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ অক্টোবর ২০২২

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ-মনোনীত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৮৩ ভোট ও তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পাটি প্রার্থী আতাউর রহমান আতা পেয়েছেন ৫২৩ ভোট। ফলে বেসরকারিভাবে আবু বকর সিদ্দিককে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।

জেলার ৭টি উপজেলার নির্বাচন অফিস থেকে এ ফলাফল নিশ্চিত করা হয়েছে। এর আগে সোমবার সকাল ৯টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে চলে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

গাইবান্ধা ৭ টি উপজেলার মধ্যে গাইবান্ধা সদরে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৯৬ ভোট আর জাতীয় পার্টি-সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৮৬ ভোট।

ফুলছড়িতে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৫৪ ভোট আর জাতীয় পাটি-সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৩৮ ভোট।

সাঘাটায় আওয়ামী লীগ সমর্থিক প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৫৬ ভোট আর জাতীয় পাটি সমর্থিক আতাউর রহমান আতা ৭৪ ভোট।

সাদুল্যাপুরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৮৮ ভোট আর জাতীয় পার্টি সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৫৫ ভোট।

পলাশবাড়ী উপজেলায় আওয়ামী লীগ- সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৬৫ ভোট আর জাতীয় পাটি- সমর্থিত আতাউর রহমান আতা ৫২ ভোট।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামীলীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ৮৩ ভোট আর জাতীয় পাটি সমর্থিক আতাউর রহমান আতা ১২৬ ভোট।

গোবিন্দগঞ্জে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক তালগাছ প্রতীকে ১৪১ ভোট আর জাতীয় পাটি সমর্থিক আতাউর রহমান আতা ৯২ ভোট পেয়েছেন।

গাইবান্ধা জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৭টি উপজেলার ৮০ টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌর সভার মোট এক হাজার ১৩৪ জন ভোটার। প্রাপ্ত ভোটের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ১ জন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ৭ জন সাধারণ সদস্য এবং ৩ জন সংরক্ষিত নারী সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

এদিকে নির্বাচন চলাকালে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।