সৈয়দপুর ১২:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাল্য বিবাহ

নাটোরে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে গেল বর

নাটোর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০২:৩৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ অগাস্ট ২০২৩ ৪৫ বার পড়া হয়েছে
চোখ২৪.নেট অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) উপস্থিতি টের পেয়ে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে গেছে বর ও অভিভাবকরা। গত ২৯ আগস্ট রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার পিপরুল ইউনিয়নের ছান্দাবাড়ি গ্রামে ১৩ বছরের সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বিয়ে দিচ্ছিলেন মেয়েটির পরিবার।

জাতীয় সেবা ৯৯৯ খবর পেয়ে উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান আকরামুল হক থানা পুলিশের সহযোগিতায় বিয়ের আসরে গিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার পিপরুল ইউনিয়নের ছান্দাবাড়ি গ্রামের ১৩ বছর বয়সী সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন করেন পরিবার। এ সময় স্থানীয়রা জাতীয় সেবা ৯৯৯ কল দিলে নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান আকরামুল হক সেই বিয়ে বাড়িতে যান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও উপস্থিতি টের পেয়ে পালালেন বর ও মেয়েটির বাবা।

নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান আকরামুল হক বলেন, জাতীয় সেবা ৯৯৯ মাধ্যমে খবর পেয়ে ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করি। ও ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পযন্ত বিয়ে না দিতে মুচলেখা আদায় করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে ছাত্রীর মামাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

বাল্যবিয়ে বিষয়ে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা উল্লেখ করে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য


বাল্য বিবাহ

নাটোরে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে গেল বর

আপডেট সময় : ০২:৩৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩১ অগাস্ট ২০২৩

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) উপস্থিতি টের পেয়ে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে গেছে বর ও অভিভাবকরা। গত ২৯ আগস্ট রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার পিপরুল ইউনিয়নের ছান্দাবাড়ি গ্রামে ১৩ বছরের সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বিয়ে দিচ্ছিলেন মেয়েটির পরিবার।

জাতীয় সেবা ৯৯৯ খবর পেয়ে উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান আকরামুল হক থানা পুলিশের সহযোগিতায় বিয়ের আসরে গিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার পিপরুল ইউনিয়নের ছান্দাবাড়ি গ্রামের ১৩ বছর বয়সী সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীর বিয়ের আয়োজন করেন পরিবার। এ সময় স্থানীয়রা জাতীয় সেবা ৯৯৯ কল দিলে নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান আকরামুল হক সেই বিয়ে বাড়িতে যান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও উপস্থিতি টের পেয়ে পালালেন বর ও মেয়েটির বাবা।

নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান আকরামুল হক বলেন, জাতীয় সেবা ৯৯৯ মাধ্যমে খবর পেয়ে ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করি। ও ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পযন্ত বিয়ে না দিতে মুচলেখা আদায় করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে ছাত্রীর মামাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

বাল্যবিয়ে বিষয়ে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা উল্লেখ করে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।