সৈয়দপুর ০৮:০২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম কমল ১৪ টাকা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:৫৪:১০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২ ২০ বার পড়া হয়েছে
চোখ২৪.নেট অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ডেস্ক রিপোর্টঃ বোতলজাত ভোজ্য তেলের দাম লিটারে ১৪ টাকা কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৭৮ টাকা। আগের দাম ছিল ১৯২ টাকা। আর প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেলের নতুন দাম হবে ১৫৮ টাকা।

বর্তমানে বাজারে খোলা সয়াবিন প্রতি লিটার ১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সয়াবিন তেলের নতুন দাম আজ থেকে কার্যকর হবে।

বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনষ্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন গতকাল এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভোজ্য তেল ব্যবসায়ীদের সংগঠনের নেতারা ডলারের মূল্যবৃদ্ধি ও ঋণপত্র খোলার জটিলতার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন।

সেই বৈঠক শেষে ভোক্তাদের সুবিধার্থে ভোজ্যতেলের দাম লিটারপ্রতি ১৪ টাকা কমিয়ে পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে খোলা সয়াবিনের দাম কমেছে লিটারপ্রতি ১৭ টাকা। বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ৫ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ৯৪৫ টাকা থেকে ৬৫ টাকা কমিয়ে করা হয়েছে ৮৮০ টাকা। দেখা যাচ্ছে, বোতলজাত ৫ লিটার সয়াবিনে লিটারপ্রতি দাম কমেছে ১৩ টাকা।

ভোজ্যতেলের ভ্যাট সুবিধা বাড়াতে এনবিআর-এ চিঠি : ভোজ্যতেলের দাম সহনীয় রাখতে পণ্যটির উপর আরোপিত ভ্যাট আগামী বছরের জুন পর্যন্ত মওকুফের প্রস্তাব দিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)-এ সম্প্রতি চিঠি পাঠিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চিঠিতে বলেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত সয়াবিন, পরিশোধিত ও অপরিশোধিত পাম তেলের দাম কিছুটা কমলেও ডলারের দাম বৃদ্ধির (আগে ১ ডলার সমান ৮৬ টাকার স্থলে বর্তমানে ১ ডলার সমান ১০৫ টাকা) কারণে অভ্যন্তরীণ বাজারে পণ্যের মূল্য আনুপাতিক হারে কমানো সম্ভব হচ্ছে না। তাই স্থানীয় বাজারে ভোজ্যতেলের মূল্য ও সরবরাহ স্থিতিশীল রাখতে ভ্যাট অব্যাহতির মেয়াদ ১ অক্টোবর থেকে বাড়িয়ে ২০২৩ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ জানান, ভোজ্যতেল আমদানিতে যে ভ্যাট সুবিধা ছিল সেটি ১ অক্টোবর থেকে রহিত হয়ে গেছে। আমরা মনে করছি, ডলারের বাজার স্থিতিশীল না হওয়া পর্যন্ত ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে ভ্যাট মওকুফ সুবিধা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য


বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম কমল ১৪ টাকা

আপডেট সময় : ০২:৫৪:১০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২

ডেস্ক রিপোর্টঃ বোতলজাত ভোজ্য তেলের দাম লিটারে ১৪ টাকা কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৭৮ টাকা। আগের দাম ছিল ১৯২ টাকা। আর প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেলের নতুন দাম হবে ১৫৮ টাকা।

বর্তমানে বাজারে খোলা সয়াবিন প্রতি লিটার ১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সয়াবিন তেলের নতুন দাম আজ থেকে কার্যকর হবে।

বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনষ্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন গতকাল এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভোজ্য তেল ব্যবসায়ীদের সংগঠনের নেতারা ডলারের মূল্যবৃদ্ধি ও ঋণপত্র খোলার জটিলতার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন।

সেই বৈঠক শেষে ভোক্তাদের সুবিধার্থে ভোজ্যতেলের দাম লিটারপ্রতি ১৪ টাকা কমিয়ে পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে খোলা সয়াবিনের দাম কমেছে লিটারপ্রতি ১৭ টাকা। বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ৫ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ৯৪৫ টাকা থেকে ৬৫ টাকা কমিয়ে করা হয়েছে ৮৮০ টাকা। দেখা যাচ্ছে, বোতলজাত ৫ লিটার সয়াবিনে লিটারপ্রতি দাম কমেছে ১৩ টাকা।

ভোজ্যতেলের ভ্যাট সুবিধা বাড়াতে এনবিআর-এ চিঠি : ভোজ্যতেলের দাম সহনীয় রাখতে পণ্যটির উপর আরোপিত ভ্যাট আগামী বছরের জুন পর্যন্ত মওকুফের প্রস্তাব দিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)-এ সম্প্রতি চিঠি পাঠিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চিঠিতে বলেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত সয়াবিন, পরিশোধিত ও অপরিশোধিত পাম তেলের দাম কিছুটা কমলেও ডলারের দাম বৃদ্ধির (আগে ১ ডলার সমান ৮৬ টাকার স্থলে বর্তমানে ১ ডলার সমান ১০৫ টাকা) কারণে অভ্যন্তরীণ বাজারে পণ্যের মূল্য আনুপাতিক হারে কমানো সম্ভব হচ্ছে না। তাই স্থানীয় বাজারে ভোজ্যতেলের মূল্য ও সরবরাহ স্থিতিশীল রাখতে ভ্যাট অব্যাহতির মেয়াদ ১ অক্টোবর থেকে বাড়িয়ে ২০২৩ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ জানান, ভোজ্যতেল আমদানিতে যে ভ্যাট সুবিধা ছিল সেটি ১ অক্টোবর থেকে রহিত হয়ে গেছে। আমরা মনে করছি, ডলারের বাজার স্থিতিশীল না হওয়া পর্যন্ত ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে ভ্যাট মওকুফ সুবিধা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন।