সৈয়দপুর ০৫:০৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন রহিমা বেগম

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:০৯:৪০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২০ বার পড়া হয়েছে
চোখ২৪.নেট অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

চোখ ডেস্কঃ নিখোঁজ হওয়া রহিমা বেগম (৫৫) কে ফরিদপুরের বোয়ালমারি থেকে উদ্ধার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আজ রবিবার রহিমা বেগমকে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই এর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

গতকাল শনিবার রাতে ফরিদপুরের বোয়ালমারি থেকে উদ্ধার করা হয় রহিমা বেগমকে। এ ঘটনায় রহিমা বেগমসহ আরও দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

জানা যায়, গত ২৭ আগস্ট রাত ১০টার দিকে খুলনা মহেশ্বরপাশার নিজ বাড়ির দোতলা থেকে নিচে পানি আনতে নিয়ে নিখোঁজ হন রহিমা বেগম। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় মামলার পর পুলিশ ও র‌্যাব ছয়জনকে গ্রেফতার করে। ১৭ সেপ্টেম্বর দৌলতপুর থানা থেকে মামলাটি পিবিআই’কে তদন্তভার দেওয়া হয়।

এদিকে, রহিমা বেগমের স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে থাকার ঘটনাকে অপহরণ দাবি করেছে আসামিদের পরিবার। তারা হয়রানির অভিযোগ এনে দায়ের মামলার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (নর্থ) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ২৭ আগস্ট রাতে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হওয়ার পর রহিমা বেগম চট্টগ্রাম ও গোপালগঞ্জের মোকসেদপুরে ছিলেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। ১৭ সেপ্টেম্বর তিনি ফরিদপুরের সৈয়দপুরে কুদ্দুসের বাড়িতে যান। যেই বাড়িতে রহিমা বেগম ছিলেন সেখান থেকে কুদ্দুস ও আরেকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশকে রহিমা বেগম জানিয়েছেন, ওই বাড়িতে তিনি স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য


স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন রহিমা বেগম

আপডেট সময় : ০৭:০৯:৪০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

চোখ ডেস্কঃ নিখোঁজ হওয়া রহিমা বেগম (৫৫) কে ফরিদপুরের বোয়ালমারি থেকে উদ্ধার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আজ রবিবার রহিমা বেগমকে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই এর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

গতকাল শনিবার রাতে ফরিদপুরের বোয়ালমারি থেকে উদ্ধার করা হয় রহিমা বেগমকে। এ ঘটনায় রহিমা বেগমসহ আরও দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

জানা যায়, গত ২৭ আগস্ট রাত ১০টার দিকে খুলনা মহেশ্বরপাশার নিজ বাড়ির দোতলা থেকে নিচে পানি আনতে নিয়ে নিখোঁজ হন রহিমা বেগম। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় মামলার পর পুলিশ ও র‌্যাব ছয়জনকে গ্রেফতার করে। ১৭ সেপ্টেম্বর দৌলতপুর থানা থেকে মামলাটি পিবিআই’কে তদন্তভার দেওয়া হয়।

এদিকে, রহিমা বেগমের স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে থাকার ঘটনাকে অপহরণ দাবি করেছে আসামিদের পরিবার। তারা হয়রানির অভিযোগ এনে দায়ের মামলার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (নর্থ) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ২৭ আগস্ট রাতে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হওয়ার পর রহিমা বেগম চট্টগ্রাম ও গোপালগঞ্জের মোকসেদপুরে ছিলেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। ১৭ সেপ্টেম্বর তিনি ফরিদপুরের সৈয়দপুরে কুদ্দুসের বাড়িতে যান। যেই বাড়িতে রহিমা বেগম ছিলেন সেখান থেকে কুদ্দুস ও আরেকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশকে রহিমা বেগম জানিয়েছেন, ওই বাড়িতে তিনি স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন।